পাকা চুল তুলে ফেলার যত ক্ষতি

এখনকার সময়ে অল্প বয়সে চুলে পাক ধরার হার আশঙ্কাজনকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। একটা সময় মনে করা হতো, চুল কেবল বয়স বাড়লেই পাকে। অনেক কারনেই এই সমস্যা দেখা দিতে পারে। মূলত চুলের গোড়ায় পিগমেন্টেশনের জন্য মেলানিনের উৎপাদন কমে যায়। যার ফলে কালো চুল হয়ে যায় সাদা।

চুলে মেলানিন কমে যাওয়ার পেছনে মূল কারণ জিনগত। পরিবারে যদি আরও কারও অকালে চুল পেকে যাওয়ার ইতিহাস থাকে তবে পরবর্তীতে বংশধরদের মাঝেও অল্প বয়সে চুল পেকে যাওয়ার সমস্যা দেখা দেয়। অন্যদিকে ভিটামিন ডি, ভিটামিন বি ১২ এর সঠিকভাবে না পেলে চুল পেকে যেতে পারে অল্প বয়সেই।

আমাদের সমাজে মনে করা হয়, পাকা চুল তুললে চুল পাকার পরিমাণ আরও বেড়ে যায়। যা নিতান্তই ভুল ধারণা। বিশেষজ্ঞরা পাকা চুল তুলতে নিষেধ করেন সংক্রমণের ভয়ে। কেননা, পাকা চুল টেনে তুললে সেখানে ত্বকের সংক্রমণ দেখা দিতে পারে।

যদি আপনি নিয়মিত পাকা চুল তুলতে থাকেন তাহলে সংক্রমিত ত্বকে “হাইপারপিগমেন্টেশন” দেখা দিতে পারে। যার কারণে নষ্ট হয়ে যেতে পারে ফলিকল। আর এতে চুল স্থায়ীভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

মাথার নির্দিষ্ট স্থান থেকে থেকে পাকা চুল তুলতে থাকলে দেখা দিতে পারে “ট্রিকোটিলোম্যানিয়া” নামক চর্ম রোগ। যার ফলে চুল পড়ার সমস্যা দীর্ঘস্থায়ী হয়।

এমনকি নিয়মিত হাত দিয়ে চুল টেনে তুলতে থাকলে মাথার কোনো কোনো অংশে স্থায়ীভাবে চুল উঠে টাক পড়ে যাবার সম্ভাবনা থাকে। তাই পাকা চুল না রাখতে চাইলে কাঁচি দিয়ে ট্রিম করে নিতে পারেন। কিন্তু কোনোভাবেই টেনে তুলবেন না।

সম্পর্কিত নিউজ

Comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ নিউজ