ডিলিট হয়ে যাওয়া ফাইল রিকভারি করার উপায়! ডাটা রিকভারি

প্রযুক্তি ডেস্ক

প্রযুক্তি ডেস্ক

১৫ জানুয়ারী, ২০২২, ৪ months আগে

ডিলিট হয়ে যাওয়া ফাইল রিকভারি করার উপায়! ডাটা রিকভারি

আপনারা সবাই জানেন ফাইল ডিলিট হয়ে গেলে সেগুলো কে আবার ফেরত আনা যায়। মেইনলি এই কাজকে বলা হয় ডাটা রিকভারি (Data Recovery)। ধরুন আপনি আপনার পুরনো যেকোনো একটা ডিভাইস কারো কাছে বিক্রি করে দিয়েছেন সেটা হতে পারে- স্মার্ট ফোন, ল্যাপটপ কিংবা ডেস্কটপ! আপনি বিক্রি করার পূর্বে সেটাকে ফুল্লি ফরমেট করেছেন অথবা ফ্যাক্টরি রিসেট করেছেন, এরপরেও যার কাছে আপনি বিক্রি করেছেন তিনি চাইলে কিন্তু আপনার পুরনো ফাইলগুলো রিকভার করে ফেলতে পারে।

ডাটা রিকভারি (Data Recovery) কি?

এক্সাম্পলঃ আপনার একটা ৮ জিবি পেনড্রাইভ রয়েছে, সেই পেনড্রাইভ এর মধ্যে ৬ জিবি ফাইল আপনি রেখেছেন অর্থাৎ এখনো এখানে অবশিষ্ট ২ জিবি ফাঁকা রয়েছে। এখন এই ৬ জিবি ফাইল থেকে আপনি ১ জিবির কিছু ফাইল ডিলেট করে ফেলেছেন, ডেস্কটপ কিংবা ল্যাপটপ অথবা কিছু কিছু মোবাইল থেকে আমরা ফাইল ডিলিট করার পরে সেটা রিসাইকেল বিন এর মধ্যে চলে যায় অর্থাৎ সেখানে গিয়ে পড়ে থাকে, আমরা পরবর্তীতে আবার রিসাইকেল বিন থেকে ডিলিট করে ফেলি। আমরা যারা জেনারেল পাবলিক আছে যারা সাধারণত ডেস্কটপ ল্যাপটপ ব্যবহার করি তারা মূলত মনে করি রিসাইকেল বিন থেকে ডিলিট করার ফলে ওটা পুরোপুরি ভাবে ডিলিট হয়ে যায়। কিন্তু ব্যাপারটা একদমই সেরকম নয়! 

যখন রিসাইকেল বিন থেকেও আপনি সম্পূর্ণভাবে ক্লিন করে ফেলেন, তারপরেও আপনার পেনড্রাইভে সেই ফাইলটি থেকেই যায় ছায়ার মত করে। একটা ফাইল ডিলিট করার পরে পেনড্রাইভে যে স্পেস বেড়ে যায় সেটা মেইনলি স্পেস পারে না অর্থাৎ মার্ক করা থাকে যে এটা বেড়েছে কিন্তু আপনার পেন্ড্রাইভ আপনাকে বুঝাতে চাচ্ছে যে এটা এখন ফাঁকা আছে ফাইল ডিলিট করার ফলে। তবে বিষয়টা এমন আপনার একটা ফাইল রিসাইকেল বিন থেকে ডিলিট করার ফলে পরবর্তীতে আবারও যদি রিসাইকেল বিন থেকে অন্য একটা ফাইল ডিলিট করেন তখন পূর্বের ফাইল টি সম্পূর্ণভাবে ডিলিট হয়ে যাবে কিন্তু সর্বশেষ যে ফাইল আপনি ডিলিট করেছেন সেটা কিন্তু ঠিকই আপনার পেনড্রাইভ এর মধ্যে ছায়া হিসেবে থেকে যাচ্ছে।

আপনি যদি আপনার স্মার্ট ফোন থাকে কমপ্লিটলি ফরমেট কিংবা রিসেট করে কারো কাছে দিয়ে দেন সেক্ষেত্রে সেটা কিন্তু সম্পূর্ণভাবে রিসেট হয় না, অর্থাৎ আপনার পুরনো ফাইলগুলো থেকেই যাচ্ছে। ল্যাপটপ কিংবা কম্পিউটার কিন্তু ইজিলি রিকোভার করতে পারবে, যদিও এ স্মার্টফোন থেকে রিকভার করা একটু কষ্টকর কিন্তু কম্পিউটার কিংবা ল্যাপটপের মাধ্যমে রিকভারি করা খুবই ইজি প্রসেস।

আপনি যদি ভুলবশত কোন ফাইল কিংবা কোন ডাটা ডিলিট করে ফেলেন, অবশ্যই ডিলিট করার ফলে আপনার মনের মধ্যে একটা কষ্ট কিংবা আতঙ্ক তৈরি হবে আপনি চাইবেন ফাইলটাকে রিকভারি করার জন্য। তাহলে গুগলে কিছু ডাটা রিকভারি সফটওয়্যার রয়েছে সেগুলোর সাহায্যে সেগুলোর রিকভার করতে পারেন। 

মনে রাখবেন কোন ফাইল ডিলিট করার পরে ওই ড্রাইভে অথবা ওর পেনড্রাইভে আরও যদি কোন ফাইল লোড করে থাকেন অর্থাৎ কোনো ফাইল ডিলিট করেছেন তারপর কোন একটা ফাইল আবার ওটাতে লোড করেছেন অথবা আরেকটা ফাইল ডিলিট করেছেন তখন কিন্তু পূর্বের ফাইলটাকে রিকোভার করা সম্ভব না। 

সুতরাং আপনার উচিত হবে কোন ডেটা ভুলবশত ডিলিট কিংবা ফরমেট হয়ে গেলে সেখানে নতুন করে কোনো ফাইল লোড না করে যথাযথ সময়ে আপনার ডিলিট হওয়া ফাইল টিকে রিকভার করুন। একইভাবে আপনি যদি ডিলিট হওয়া ফাইল এর পরে আবার একই পেনড্রাইভ কিংবা ড্রাইভে ফাইল লোড করেন সেক্ষেত্রে পূর্বের ডিলিট হওয়া ফাইল আপনি রিকভার করতে পারবেন না। তবে হ্যাঁ, পূর্বের ফাইল রিকভার করার পরে আপনি ফাইল লোড করতে পারেন অথবা আপনার যা ইচ্ছা সেটা করতে পারেন।

আমাদের পুরনো ফাইল যদি কেউ রিকভার করে?

এখন অনেকেরই মনের মধ্যে একটা আতঙ্ক তৈরি হতে পারে যে আমি তো পূর্বে আমার ডিভাইস বিক্রি করে ফেলেছি এখন যদি সে আমার ডেটাগুলো রিকভার করে ফেলে তখন কি? 

যেহেতু স্মার্টফোনগুলো দৈনন্দিন জীবনে বেশি ক্রয়-বিক্রয় হয়ে থাকে তাই এ স্মার্টফোন দিয়ে আমরা আপনাদের বুঝানোর চেষ্টা করছি! এখানে যদি আপনার আইফোন হয়ে থাকে সে ক্ষেত্রে আপনি পুরোপুরি ভাবে নিরাপত্তায় নিয়োজিত, কারণ আইওএস ডিভাইস বাই ডিফল্ট সিকিউর থাকে এটা নিয়ে সমস্যা নেই। কারণ আইওএস থেকে ফাইল রিকভার করা যায় না যদিও রিকভার করে ফেলে সে ক্ষেত্রে তিনি ওই ফাইল কোন কাজে ব্যবহার করতে পারবেন না। 

তবে আপনি যদি অ্যান্ড্রয়েড ফোন ইউজার হয়ে থাকেন, এন্ড্রয়েড ভার্সন ৫ এরপরের ডিভাইসগুলো যদি ব্যবহার করে থাকেন তাহলে শিওর থাকেন আপনার ডিভাইসটি নিরাপত্তায় রয়েছে অর্থাৎ আপনাকেও টেনশন করতে হবে না। কিন্তু আপনার ডিভাইস যদি অ্যান্ড্রয়েড ৫ এর আগের হয়ে থাকে তাহলে কিন্তু আপনাকে ম্যানুয়ালি এনক্রিপ্ট করতে হবে, এছাড়া ফাইল রিকভার হয়ে যেতে পারে। আপনার ফোনে ফাইলগুলো এনক্রিপ্ট আছে কিংবা নেই এটা যদি কনফিউজড থাকেন সেক্ষেত্রে আপনার সেটিংস থেকে বিষয়টি জাস্টিফাই করে নিতে পারেন।

অ্যান্ড্রয়েড ফোন থেকে সেটিংস (Settings) অপশন ওপেন করুন >> সিকিউরিটি (Security) অপশন ওপেন করুন >> এনক্রিপ্ট (Encryption) নামে ওখানে একটা অপশন থাকে তাহলে আপনার মোবাইল সেইফ, যদি আপনার এখানে লেখা না থাকে সেক্ষেত্রে এনক্রিপ্ট করার অপশন থাকবে সেই থেকে আপনি একটু কষ্ট করে এনক্রিপ্ট করে নিবেন। যদিও ইন্টাক্ট করতে একটু লম্বা সময় লাগতে পারে ধৈর্য ধরে কাজটা সম্পূর্ণ করে নিবেন। এর ফলে যা হবে আপনি যখনই আপনার পুরনো ফোনটি বিক্রি করবেন তখন আর সেই ফোন থেকে কেউ ডাটা চাইলে রিকভার করতে পারবেন না।

ল্যাপটপ কিংবা কম্পিউটার রিকভার (Recovery)

লেপটপ কিভাবে ডেক্সটপ কম্পিউটার যদি আপনি বিক্রি করে ফেলেন তাহলে সবচাইতে ভালো সমাধান হচ্ছে আপনার কম্পিউটারে কিংবা ল্যাপটপে থাকা হার্ডডিক্স/ এসএসডি খুলে রেখে দেওয়া। আমরা জানি আমাদের পুরনো ডিভাইসগুলো ব্যবহারের ফলে বিশেষ করে ল্যাপটপ বা ডেস্কটপ কম্পিউটারের ফাইলগুলো বিভিন্ন সময় দরকার পড়ে তাই অধিকাংশ সময় আমরা আমাদের ব্যক্তিগত হার্ডডিক্স কিংবা এসএসডি খুলে রেখে দেই। কিন্তু এখানে যদি আপনার ক্রেতা আপনার হার্ডডিক্সে বসেন সেক্ষেত্রে আপনি একটা নতুন হার্ডড্রাইভ কিনে লাগিয়ে দিতে পারেন আপনার বিকৃত ল্যাপটপ কিংবা ডেক্সটপে।

কিন্তু যদি আপনি এমন ধরনের ঝামেলায় না জড়াতে চান সে ক্ষেত্রে, আপনার যদি মনে হয় আমি ফাইল সম্পূর্ণভাবে ডিলিট করে দিয়ে তাকে হার্ডডিক্স কিংবা এসএসডি সহ আমার জিনিসটা বুঝিয়ে দিব তবে এক্ষেত্রে তিনি যেন আমার ফাইলগুলো রিকভার না করতে পারে সেটা আমি করে দিব। এজন্য আপনি দেখবেন অনেকগুলো টুলস রয়েছে যেগুলো থেকে ডিলিট করলে রিকোভার করা যায় না সেগুলোর ব্যবহার করতে পারেন। যেমন- CCleaner >> Tools >> Drive Wiper থেকে যদি আপনারা আপনাদের ড্রাইভগুলোকে ফরমেট করেন কিংবা ডাটা ডিলিট করেন তাহলে পূর্বের ফাইলগুলো রিকভারি করা যায় না। CCleaner একটি ডেস্কটপ সফটওয়্যার এটি গুগলে এভেলেবেল রয়েছে।

যদি আপনার ডেস্কটপে কিংবা কম্পিউটারে প্রাইভেট কিংবা ব্যক্তিগত কোনো ফাইল না থাকে সে ক্ষেত্রে এই কাজগুলো করার দরকার নেই এগুলো একটা এক্সট্রা ঝামেলা হয়ে থাকে, তবে যদি আপনার ব্যক্তিগত কোনো ফাইল কিংবা কোন কিছু থাকে সেক্ষেত্রে আপনি এই কাজগুলো করে তবে মাত্র ক্রেতাকে আপনার প্রোডাক্ট বুঝিয়ে দিন।