patrika71
ঢাকাশুক্রবার - ১৪ অক্টোবর ২০২২
  1. অনুষ্ঠান
  2. অনুসন্ধানী
  3. অর্থনীতি
  4. আইন-আদালত
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আবহাওয়া
  7. ইসলাম
  8. কবিতা
  9. কৃষি
  10. ক্যাম্পাস
  11. খেলাধুলা
  12. জবস
  13. জাতীয়
  14. ট্যুরিজম
  15. প্রজন্ম
আজকের সর্বশেষ সবখবর

রাণীশংকৈল মহিলা ডিগ্রী কলেজে নিয়োগে অনিয়ম

উপজেলা প্রতিনিধি, রাণীশংকৈল
অক্টোবর ১৪, ২০২২ ৩:২৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল মহিলা ডিগ্রি কলেজে শিক্ষক নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনার তদন্তে ২৫ সেপ্টেম্বর তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়; কিন্তু প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নির্ধারিত সময় ১৫ দিন পার হলেও তদন্ত শুরু করেনি কমিটি।

কলেজ পরিচালনা পরিষদের সিদ্ধান্তমতে, তদন্ত কমিটিতে পরিষদের সদস্য নাসিরউদ্দীনকে আহ্বায়ক এবং আহাম্মদ হোসেন বিপ্লব ও কলেজ অধ্যক্ষ মহাদেব বসাককে সদস্য করা হয়।

জানা গেছে, ৩১ জুলাই রাণীশংকৈল মহিলা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মহাদেব বসাক ডিগ্রি পাসকোর্সে মনোবিজ্ঞান বিষয়ে দুজন ও উচ্চ মাধ্যমিক চারু ও কারুকলা বিষয়ে একজন, এ ছাড়া শূন্য পদে ডিগ্রি পাসকোর্সে তৃতীয় শিক্ষক হিসেবে অর্থনীতি, ব্যবস্থাপনা, ইংরেজি, সমাজবিজ্ঞান, হিসাববিজ্ঞান, ভূগোল ও পরিবেশ বিষয়ে একজন করে প্রভাষক নিয়োগ দেওয়ার একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেন। এতে ১৫ দিনের মধ্যে আগ্রহীদের অধ্যক্ষের কাছে আবেদনপত্র জমা দিতে বলা হয়। নির্ধারিত সময়ে ঠাকুরগাঁও সরকারি কলেজে নিয়োগ-পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

অভিযোগ উঠেছে, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের নির্দেশনা অনুযায়ী ওইসব পদে কোনোভাবেই অধ্যক্ষসহ পরিচালনা পর্ষদ নিয়োগ দিতে পারবে না। ২০১৬ সালের পর থেকে এ নিয়োগ দিচ্ছে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) অথচ এনটিআরসিএকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে অধ্যক্ষ মহাদেব শিক্ষক নিয়োগ দিয়েছেন।

এ নিয়ে ২৫ সেপ্টেম্বর পরিচালনা পর্ষদের সভায় প্রশ্ন তোলেন দাতা সদস্য ঠাকুরগাঁও-৩ আসনের সাবেক জাতীয় সংসদ সদস্য ও জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য হাফিজউদ্দীন আহাম্মদ। এ সময় কলেজ অধ্যক্ষ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত কলেজ পরিদর্শক ফাহিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত চিঠি সভায় উপস্থাপন করা হয়।

এ চিঠির সত্যতা যাচাই বাছাইয়ের জন্যই একটি তদন্ত কমিটি করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেন কলেজ অধ্যক্ষ মহাদেব বসাক। ওই চিঠি থেকে জানা গেছে, তৃতীয় শিক্ষকদের বেতন-ভাতা কলেজ কর্তৃক পরিশোধের শর্তে নিয়োগ দেওয়ার অনুমিত দেওয়া হয়েছে। এই চিঠির সত্যতা যাচাই-বাছাইয়ের জন্যই তদন্ত কমিটি করা হয়েছে।

অধ্যক্ষ মহাদেব বসাক প্রতিবেদককে বলেন, তথ্য দেওয়া যাবে না। আপনারা ঠাকুরগাঁও সরকারি কলেজে যোগাযোগ করেন। সেখানে নিয়োগ-পরীক্ষা হয়েছে। সেখানেই সব তথ্য পাবেন।

তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক প্রভাষক নাসিরউদ্দীন বলেন, ‘নিয়োগগুলো সম্বন্ধে এখনো খোঁজখবর নেওয়া হয়নি। আমরা নিয়োগ সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোতে যোগাযোগ করে সবকিছু যাচাই-বাছাই করে তদন্ত প্রতিবেদন পরিচালনা পর্ষদের সভায় খুব শিগগিরই জমা দেব।’

কলেজ পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সইদুল হক মুঠোফোনে বলেন, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে ভিন্ন ভিন্ন নির্দেশনা থাকায় নিয়োগ দেওয়া যাবে কি না তা যাচাই-বাছাই করার জন্যই তদন্ত কমিটি করা হয়েছে।

পত্রিকা একাত্তর / আনোয়ার হোসেন আকাশ