ইটভাটা মালিকের হুমকিতে শিক্ষা অফিসার

ভোলার দৌলতখানে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে মোঃ মাকসুদ আলম নামের এক উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজারকে মারধর ও হুমকি-ধামকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে মেসার্স রংধনু ব্রিকসের মালিক রিপন ও তার ভাই পারভেজের বিরুদ্ধে। মোঃ মাকসুদ আলম নামের ওই কর্মকর্তা বর্তমানে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলায় কর্মরত আছেন।

তিনি ভোলা, দৌলতখান উপজেলার চরপাতা ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের আবদুর রশিদের ছেলে। বর্তমানে তার স্বজনরা ভয়ে দিন কাটাচ্ছেন। ইটভাটা মালিক পারভেজ ও রিপনের হুমকিতে এলাকায় আসতে পারছেন না ওই কর্মকর্তা।

এবিষয়ে উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজার মোঃ মাকসুদ আলম মুঠোফোনে জানান, দীর্ঘদিন ধরে ১ একর জমিতে রবিশস্য ও ধানের আবাদ করে আসছি। রিপন ও পারভেজ কৌশলে উক্ত প্রায় জমি দখল করে ইটভাটার জন্য মাটি কেটে নিয়ে যায়।

এছাড়াও পার্শ্ববর্তী জমি থেকে ভেক্যু দিয়ে গভীর গর্ত করে মাটি কেটে ট্রাক ভর্তি করে নিয়ে যাচ্ছেন ইটভাটা মালিক রিপন ও তার ভাই পারভেজ। গভীর গর্ত করে মাটি কাটায় আমার ওই জমি ভেঙে যায়।

এতে ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়। গত ২৫ এপ্রিল বড় বোন জোৎসা বেগম প্রতিবাদ করতে গেলে ইটভাটা মালিক রিপন ও তার ভাই পারভেজ তাকে লাঞ্ছিত করে। ২ মে মোঃ মাকসুদ আলম ঈদের ছুটিতে বাড়িতে এসে বোনের লাঞ্ছিত করার বিষয়ে জানতে রিপনের কাছে গেলে পারভেজ ও রিপন তাকে মারধর করে।

তিনি আরও বলেন, পারভেজ ও রিপনের হুমকি-ধামকির কারণে এবার কোরবানী ঈদেও বাড়িতে আসতে পারিনি। আমার পরিবারের সদস্যরা ভয়ে দিন কাটাচ্ছে। বর্তমানে তাদের হুমকি-ধামকি চলমান রয়েছে। রবিবার সরেজমিনে গেলে স্থানীয়রা এসব বিষয়ে তাদের ভয়ে মুখ-খুলতে রাজি হয়নি।

জানা যায় ইট প্রস্তত ও ভাটা স্থাপন নিয়ন্ত্রণ আইন ২০১৩-তে বলা আছে, আবাসিক এলাকা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাটবাজার ও ফসলি জমির এক কিলোমিটারের মধ্যে ইটভাটা স্থাপনা করা যাবে না।

কিন্তু কাগজের নিয়মনীতির সঙ্গে বাস্তব চিত্রের মিল পাওয়া যায়নি। এদিকে অভিযুক্ত ইটভাটা মালিক পারভেজ ও রিপন বলেন, এসব অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।

পত্রিকাএকাত্তর / নিয়াজ মাহমুদ

সম্পর্কিত নিউজ

Comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ নিউজ