patrika71 Logo
ঢাকাশুক্রবার , ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১
  1. অনুষ্ঠান
  2. অপরাধ
  3. অর্থনীতি
  4. আইন-আদালত
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আন্দোলন
  7. আবহাওয়া
  8. ইভেন্ট
  9. ইসলাম
  10. কবিতা
  11. করোনাভাইরাস
  12. কৃষি
  13. খেলাধুলা
  14. চাকরী
  15. জাতীয়
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মাত্রাতিরিক্ত ভারী যান উঠলেই সিগন্যাল দেবে লেবুখালী সেতু

পত্রিকা একাত্তর ডেক্স
সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২১ ৮:১২ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

ad

আগামী অক্টোবর মাসের যেকোনও দিন যানচলাচলে উন্মুক্ত করে দেওয়া হতে পারে বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়কের লেবুখালী পয়েন্টে পায়রা নদীর ওপর নির্মিত নান্দনিক পায়রা সেতু। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্বোধনের মধ্য দিয়েই যানচলাচলের জন্য উন্মুক্ত হবে। এটি নির্মাণে ব্যয় হচ্ছে এক হাজার ১১৮ কোটি টাকা।

দেশে প্রথমবারের মতো এ সেতুতে যুক্ত করা হয়েছে হেলথ মনিটরিং ও পিয়ার প্রটেকশন সিস্টেম। এর মাধ্যমে প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও মাত্রাতিরিক্ত ভারী যানবাহনের সংকেত পাওয়া যাবে। প্রকল্প পরিচালক আব্দুল হালিম বলেন, এ সেতুর একটি বিশেষত্ব হচ্ছে, যেকোনও দুর্ঘটনায় সিগন্যাল দেবে। দেশে প্রথমবারের মতো পায়রা সেতুতে যুক্ত করা হয়েছে হেলথ মনিটরিং ও পিয়ার প্রটেকশন সিস্টেম। এর ফলে যেকোনও ধরনের ওভারলোডেড (মাত্রাতিরিক্ত ভারী) যান সেতুতে উঠলে সঙ্গে সঙ্গে হেলথ মনিটরিং সিস্টেম থেকে সিগন্যাল পাওয়া যাবে। একইভাবে উচ্চমাত্রার ভূমিকম্প ও বজ্রপাতসহ বিভিন্ন ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ যেগুলোতে সেতুর ক্ষতি হতে পারে এ ধরনের আশঙ্কা থাকলেও সিস্টেম সিগন্যাল দেবে। তার আশা, ‘প্রধানমন্ত্রী দেশে ফেরার পর নির্ধারণ হবে সেতু উদ্বোধনের তারিখ ও সময়। উদ্বোধনের সঙ্গে সঙ্গে খুলে দেওয়া হবে সেতুটি।’প্রকল্প পরিচালক বলেন, ‘পায়রা নদীর ওপর প্রায় দেড় কিলোমিটার সেতুর ৯৯ ভাগ এবং পুরো প্রকল্পের ৯৩ ভাগ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। বাকি নদী শাসনের কাজ সম্পন্নে ফেরি চলাচল বন্ধ করতে হবে। সেতুতে যানবাহন চলাচল শুরু হলে ফেরি চলাচল বন্ধ করে এ কাজ সম্পন্ন করা হবে। এতে পুরো প্রকল্পের কাজ শেষ হবে।’ আব্দুল হালিম আরও বলেন, ‘কর্ণফুলী দ্বিতীয় সেতুর আদলেই নির্মাণ করা হয়েছে চার লেনের লেবুখালী সেতু। পায়রা নদীর মূল অংশের ৬৩০ মিটারে বক্স গার্ডার চারটি স্প্যানের ওপর নির্মিত হয়েছে। লেবুখালী সেতুর ৩২টি স্প্যান দাঁড়িয়ে আছে ৩১ টি পিয়ারের ওপর। সেতুটির ২৮ টি স্প্যানের ১২ টি বরিশাল প্রান্তে এবং ১৬টি পটুয়াখালী প্রান্তে।

আরো পড়ুনঃ  দখল হওয়া সরকারি জমি উদ্ধার করলেন এসিল্যান্ড

এছাড়া ১৬৭টি বক্স গার্ডার সেগমেন্ট রয়েছে সেতুতে। যার ফলে দূর থেকে সেতুটিকে মনে হবে ঝুলে আছে। বিদ্যুতের আলোতে আলোকিত করা হয়েছে সেতুটি। এক্সট্রা ডোজ ক্যাবল স্ট্রেট নকশায় নির্মিত সেতুর দৈর্ঘ্য এক হাজার ৪৭০ এবং প্রস্থ ১৯.৭৬ মিটার। নদীর উভয়প্রান্তে সংযোগ সড়ক রয়েছে এক হাজার ২৬৮ মিটার।’ পায়রা সেতু প্রকল্পের উপ-ব্যবস্থাপক কামরুল হাসান বলেন, ‘এখন সংযোগ সড়কের রোড মার্কিং, সড়ক বাতি, ওয়েট ব্রিজ (স্কেল) এবং টোল সিস্টেমের কাজ শেষের দিকে। প্রসঙ্গত, কুয়েত ফান্ড ফর আরব ইকোনমিক ডেভলপমেন্ট (কেএফএইডি) এবং ওপেক ফান্ড ফর ইন্টারন্যাশনাল ডেভলপমেন্টের (ওএফআইডি) যৌথ অর্থায়নে ২০১৬ সালের ২৪ জুলাই এই সেতু নির্মাণ কাজ শুরু হয়। চীনা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান লংজিয়ান রোড অ্যান্ড ব্রিজ কোম্পানি লিমিটেড সেতুটি নির্মাণে কাজ করছে।

আরো পড়ুনঃ  আমতলীতে গাজা ব্যবসায়ী আটক

মো ইমাম হোসেন রিদয়: বাকেরগনজ, বরিশাল প্রতিনিধি।