patrika71
ঢাকামঙ্গলবার - ৮ নভেম্বর ২০২২
  1. অনুষ্ঠান
  2. অনুসন্ধানী
  3. অর্থনীতি
  4. আইন-আদালত
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আবহাওয়া
  7. ইসলাম
  8. কবিতা
  9. কৃষি
  10. ক্যাম্পাস
  11. খেলাধুলা
  12. জবস
  13. জাতীয়
  14. ট্যুরিজম
  15. প্রজন্ম
আজকের সর্বশেষ সবখবর

৪১ বছরে পা রাখলেন অনুষ্কা শেট্টি

বিনোদন ডেস্ক
নভেম্বর ৮, ২০২২ ৬:০৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

অনুষ্কা শেট্টি হচ্ছেন একজন ভারতীয় ছবির নায়িকা, যিনি প্রকৃতরুপে তেলুগু, তামিল ছবিতে কাজ করেন। আজ তার ৪১তম জন্মদিন ৭ নভেম্বর ১৯৮১ সালে অনুষ্কা মাঙ্গালোরে জম্মগ্রহণ করেন। অনুষ্কা এথনিক টুলুভা বেল্লিপাডি উরামালু গুথু পরিবার থেকে আসেন। তার পিতামাতা হলেন প্রফুল্লা এবং এ এন ভিত্তাল শেট্টি।

তার দুই ভাই রয়েছে গুণরঞ্জন শেট্টি ও সাঁই রমেশ শেট্টি যিনি একজন কস্‌মেটিক সার্জন (শল্যচিকিৎসক)। আনুশ্‌কা বেঙ্গলুরুতে তার স্কুল জীবন পার করেন এবং মাউন্ট কার্মেল কলেজ, বেঙ্গালোর থেকে ব্যাচেলর অব কম্পিউটার এপ্লিক্যাশনস্‌ শেষ করেন। তিনি ভারত ঠাকুর থেকে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত একজন যোগ প্রশিক্ষকও ছিলেন।

অনুষ্কা শেট্টি ২০০৫ সালে পুরি জগন্নাথের তেলুগু ছবি সুপার দিয়ে অভিনয় জীবনে পদচারণা শুরু করেন, যেখানে তাকে আক্কিনেনি নাগার্জূন ও আয়েশা টাকিয়ার সাথে অভিনয় করতে দেখা যায়। ছবিটি নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া থাকলেও ইন্ডিয়াগ্লিটজ্‌-এ বলা হয় – আয়েশা ও আনুশ্‌কা দুজনেই অসাধারণ কাজ করেন। অনুষ্কা একই বছরে অন্য আরেকটি ছবি মহা নন্দিতে শ্রীহরি ও সুমন্তের বিপরীতে অভিনয় করেন। ছবিটি নিয়েও মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা যায়।

২০০৬ সালে তার চারটি ছবি মুক্তি পেয়েছিলো, প্রথমে এস. এস. রাজামৌলির ভিক্রমারকুডু যেখানে তিনি রবি তেজার সঙ্গে জোট বেঁধেছিলেন। ছবিটি বিশাল সাফল্য পায় এবং তাকে আন্দ্র প্রদেশে জনপ্রিয় করে তুলতে সাহায্য করে। কিশোর উল্লেখ করেন, “রবি তেজার নিখুঁত অভিনয় ও অনুষ্কা শেট্টির কামত্তপূর্ণ অভিনয়ই ছবিটির উচ্চ পয়েন্ট প্রাপ্তির কারণ।

রভি তেজার মধ্যে সেসকল কলা উপস্থিত যা একজন নায়কের থাকা প্রয়োজন এবং অনুষ্কা শেট্টির সে সকল গুণাবলী বিদ্যমান যা একজন নারীর থাকা উচিত। সিফি বলেন, অনুষ্কা হলেন নির্ধারিতভাবে একজন লক্ষ্যণীয়া। তিনি তার পরবর্তী ছবি আস্ট্রাম, যেটি ১৯৯৯ সালের হিন্দি ছবি সারফারোশ ছবির পুনঃনির্মাণ, যার মধ্য দিয়ে তিনি তামিল চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রিতে পা রেখেছিলেন।

সুন্দার সি পরিচালিত অ্যাকশন ছবি ‘রেন্ডু’তে অভিনয় করেন ও আর মাধাভানের সাথে পর্দায় জুলটি বেঁধেছিলেন। পরবর্তীকালে তাঁকে স্ট্যালিন ছবিতে বিশেষ চরিত্রে দেখা যায় মেগা তারকা চিরঞ্জীবীর পাশে এ আর মুরুগাদোূসএর পরিচালনায়, যা তাঁর প্রথম তেলুগু ডাইরেক্টরিয়াল ড্যাবু।

২০১০ সালে, আনুশ্‌কা তামিল ছবি সিঙ্গম (২০১০)এবং সিঙ্ঘম ২ (২০১৩) সিকুয়াল ছবিতেও অভিনয় করে সাফল্য পান। ছবি দুটিই ব্যবসায়িক সাফল্যের মুখ দেখে এবং ভানাম (২০১১) ও দৈভা থিরুমগল (২০১১) ছবি দুটিতেও অভিনয় করে অনেক প্রশংসা কুরান।ভারতের অন্যতম ব্যবসাসফল ছবি বাহুবলী ২: দ্য কনক্লুশন এর জন্য তিনি অধিক সু-পরিচিত।

পত্রিকা একাত্তর / মাসুদ পারভেজ