patrika71
ঢাকামঙ্গলবার - ১৩ ডিসেম্বর ২০২২
  1. অনুষ্ঠান
  2. অনুসন্ধানী
  3. অর্থনীতি
  4. আইন-আদালত
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আবহাওয়া
  7. ইসলাম
  8. কবিতা
  9. কৃষি
  10. ক্যাম্পাস
  11. খেলাধুলা
  12. জবস
  13. জাতীয়
  14. ট্যুরিজম
  15. প্রজন্ম
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মা’হাদ আন-নিবরাসের বালিকা শাখা উদ্বোধনে শায়খ আহমাদুল্লাহ

জেলা প্রতিনিধি, কক্সবাজার
ডিসেম্বর ১৩, ২০২২ ১:৪৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

১২ই ডিসেম্বর, রোজ সোমবার মা’হাদ আন-নিবরাসের নতুন সংযোজন ‘বালিকা শাখা’ উদ্‌বোধন করেন আন্তর্জাতিক ইসলামিক স্কলার শায়খ আহমাদুল্লাহ। বালিকা শাখা উদ্‌বোধনের প্রক্রিয়াশেষে মা’হাদ আন-নিবরাসের হলরুমে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের উদ্দেশ্যে দিকনির্দেশনামূলক আলোচনা করেন তিনি।

মা’হাদ আন-নিবরাসের ‘বালিকা শাখা’ উদ্‌বোধন-পরবর্তী আলোচনাসভায় সভাপতিত্ব করেন এবং স্বাগত বক্তব্য রাখেন মা’হাদ আন-নিবরাসের প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক মাওলানা জিয়াউল হক। মা’হাদ আন-নিবরাসের শিক্ষাপরিচালক মাওলানা আনসারুল্লাহ অনুষ্ঠানটির সঞ্চালনা করেন।

উদ্বোধিত বালিকা শাখার প্রথম শিক্ষার্থী ফাতিমা ওয়ারদার তিলাওয়াতের মাধ্যমে অনুষ্ঠানটি আরম্ভ হয়। অনুষ্ঠানে শায়খ আহমাদুল্লাহকে উপলক্ষ্য করে মা’হাদ আন-নিবরাসের সহকারী শিক্ষক সাইফুদ্দিন সালমান আজিজের কথামালা ও অপর সহকারী শিক্ষক মাওলানা সালাউদ্দিনের সুরে অভ্যর্থনা সংগীত পরিবেশন করে একাধিকবার জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত মা’হাদ আন-নিবরাসের শিক্ষার্থী মুশফিকুর রহমান ও ইফতেখার তাহসিন।

শায়খ আহমাদুল্লাহ তাঁর দিকনির্দেশনামূলক আলোচনায় বলেন, “অভিভাবকদের আমি প্রধানত তিনটি বিষয়ে লক্ষ্য রাখার অনুরোধ করব—
১. সন্তানদের সামনে নিজেরাই সচ্চরিত্রের আদর্শ হবেন।
২. সন্তানদের জন্য আন্তরিকভাবে দুআ করবেন।
৩. হালাল রিজিক ছাড়া হারাম রিজিকের দিকে আসক্ত হবেন না”।

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে শায়খ আহমাদুল্লাহ বলেন, “শয়তান সবচেয়ে বেশি থাকে মাদ্রাসার আশেপাশে। তোমরা হয়তো-বা শয়তানকে দেখতে পাও না, কিন্তু সে তোমাদের আশেপাশেই আছে। যখন তোমাদের খারাপ কাজ করতে মন চাইবে, ধরে নিও, শয়তান তখন তোমাদের পেয়ে বসেছে। এমন সময়ে তোমাদের দায়িত্ব হবে শয়তানকে পরাজিত করা।”

শায়খ আহমাদুল্লাহ শিক্ষকদের আহ্বান করে বলেন, নিজস্ব দায়িত্ববোধ ও আমানতদারিতার সাথে নিজ দায়িত্ব পালন করবেন এবং ছাত্রদের নিজ সন্তানের মতো করে দেখবেন।

মা’হাদ আন-নিবরাসের ভূয়সী প্রশংসা করে শায়খ আহমাদুল্লাহ বলেন, “মা’হাদ আন-নিবরাসের বয়সের তুলনায় সাফল্যের পাল্লা ভারী দেখে আমি যারপরনাই অভিভূত। গত রমজানে যে সওতুল কুরআন প্রতিযোগিতায় আমি অতিথি হিসেবে গিয়েছিলাম, সেখানে নিবরাসের ছাত্র মুশফিকের তিলাওয়াত শুনে আমি মুগ্ধ হয়ে যায়”।

অনুষ্ঠানে শায়খ আহমাদুল্লাহকে ধন্যবাদ জানিয়ে বক্তব্য রাখেন দৈনিক ইনকিলাবের কক্সবাজার ব্যুরো চিফ বিশিষ্ট সাংবাদিক শামসুল হক শারেক। এছাড়া অনুষ্ঠানে দূরদূরান্ত থেকে আরও মেহমান আগমন করেন এবং মা’হাদ আন-নিবরাস সম্পর্কে ইতিবাচক মন্তব্য পরামর্শ দিয়ে যান।

মূল অনুষ্ঠানের পূর্বে ছাত্রদের তিলাওয়াত শুনে বিভিন্ন দিকনির্দেশনা প্রদান করেন মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসার সাবেক কেরাত বিভাগীয় প্রধান কারি জহিরুল হক।

অনুষ্ঠানের একপর্যায়ে মা’হাদ আন-নিবরাসের পক্ষ থেকে শায়খ আহমাদুল্লাহকে ইসলামপ্রচার ও মানবতার কাজে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করেন অনুষ্ঠানের সভাপতি মাওলানা জিয়াউল হক।

পত্রিকা একাত্তর/ শাহাজাহান সিরাজ