patrika71
ঢাকাশুক্রবার - ২ ডিসেম্বর ২০২২
  1. অনুষ্ঠান
  2. অনুসন্ধানী
  3. অর্থনীতি
  4. আইন-আদালত
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আবহাওয়া
  7. ইসলাম
  8. কবিতা
  9. কৃষি
  10. ক্যাম্পাস
  11. খেলাধুলা
  12. জবস
  13. জাতীয়
  14. ট্যুরিজম
  15. প্রজন্ম
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভোলায় বিষ দিয়ে অতিথি পাখি শিকার আটক-৩

জেলা প্রতিনিধি, ভোলা
ডিসেম্বর ২, ২০২২ ১২:৫০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

শীত মৌসুম শুরুতে শুরু হয়েছে বিষ টোপে অতিথি পাখি নিধনের মহোৎসব। রাতের আঁধারে কিংবা দিনের বেলায় কিছু অসাধু চোরাশিকারী ফাঁদ পেতে অতিথি পাখি শিকার করছে।

১ ডিসেম্বর (বৃহস্পতিবার) বিকাল ৪ টার সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে, ভোলার দৌলতখানের ভবানীপুর চর থেকে বিষ দিয়ে অতিথি পাখি শিকারের সময় ৩ জন সহ ৬ টি অতিথি পাখি এবং বিষাক্ত কাঠোফুরান কীঠনাশক DDT কীটনাশক উদ্ধার করেন উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ও দৌলতখান থানার এস আই শাহাদাৎ সহযোগী ফোর্স। এসময় বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করে ৬ হাজর মিটার অবৈধ কোনা জাল ২ টি নৌকা সহ ২০ কেজি অবৈধ ছোট মাছের পোনা জব্দ করা হয়।

আটকৃত জাল আগুনে পুড়িয়ে ধ্বংস হয়, যার মূল্য আনুমানিক ১ লক্ষ ৫০ হাজর টাকা। নৌকা ২ টি নিলাম দেওয়া হয় নিলামে সর্বোচ্চ দাম উঠে ৩৫ হাজার ২৫০ টাকা এবং জব্দকৃত মাছ এতিমখানায় বিতরণ করা হয়। পরবর্তীতে উপজেলা নির্বাহী অফিসারে আদেশক্রমে আটককৃত ৩ জন সহ ৬ পিজ অতিথি পাখি বন বিভাগের নিকট হস্তান্তর করা হয়।

ভোলার দৌলতখানসহ মেঘনা নদীর বিভিন্ন পয়েন্টে চোখে পড়ে এ দৃশ্য। সামান্য টাকার লোভে বিষাক্ত টোপ দিয়ে পাখি শিকার করতে গিয়ে মারা পড়ছে শত শত পাখি। পরে জবাই করা জোড়া প্রতি বিক্রি হচ্ছে ৭শ থেকে ৮শ টাকায়। এভাবে নির্বিচারে পাখি শিকার করার ফলে পাখিদের আগমন যেমন কমে যাচ্ছে। তেমনি নষ্ট হচ্ছে পরিবেশের ভারসম্য। প্রাণনাশ ক্যান্সের হুমকিতে পরছে মানবকুল। সৌন্দয্য হারাচ্ছে মনমুগ্ধকর চরগুলো। এছাড়া অতিথি পাখি শিকারীদের বিরুদ্ধে স্থানীয় প্রশাসনের কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় শিকারীদের দৌরাত্ম আরও বৃদ্ধি পাচ্ছে। ১৯৭৪ সালে বন্যপ্রাণী রক্ষা আইন ও ২০১২ সালে বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা আইনে বলা হয়েছে পাখি নিধনের সর্বোচ্চ শাস্তি এক বছর জেল ও এক লাখ টাকা অর্থদন্ড বা উভয় দন্ডে দন্ডিত হবে। একই অপরাধের পুনরাবৃত্তি হলে অপরাধীর দুই বছরের জেল ও দুই লাখ টাকা জরিমানা বা উভয় দন্ডের বিধান রয়েছে।

উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মাহফুজুল হাসনাইন জানান, মৎস্য অভিযানে অবৈধ জাল জব্দ করার সময়। গোপন সূত্রে জানতে পারি একটি অসাধু চক্র বিষ দিয়ে নদীতে অতিথি পাখি শিকারের জন্য তৎপর হয়েছে এমন সংবাদের ভিতিতে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এসময় বিষ দিয়ে নিধনকৃত ৬ টি অতিথি পাখি  বিষ সহ ৩ জনকে আটক করা হয়। একটি চক্র বেশকিছু দিন ধরে দ্রুতগামী নৌকাসহ এসব অতিথি পাখি শিকার করছে। তিনি এবিষয় বন অধিদপ্তর প্রানী সম্পদ এবং উপজেলা প্রসাশনের সহযোগী কামনা করেন এবং খুব দ্রুত এই চক্ররের আরও সদস্য-কে যৌথ অভিযানের মাধ্যমে আটক করার আশ্বাস দেন।

ভোলা বন্যপ্রাণী ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম বলেন, উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তার সহযোগীতায় আমরা এই অতিথি পাখি সহ ৩ জন-কে আটক করি তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এবং এর সাথে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধেও তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে এবং মামলা প্রক্রিয়া রয়েছে।

পত্রিকা একাত্তর/ নিয়াজ মাহমুদ জয়