patrika71 Logo
ঢাকাবৃহস্পতিবার , ২৬ আগস্ট ২০২১
  1. অনুষ্ঠান
  2. অপরাধ
  3. অর্থনীতি
  4. আইন-আদালত
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আন্দোলন
  7. আবহাওয়া
  8. ইভেন্ট
  9. ইসলাম
  10. কবিতা
  11. করোনাভাইরাস
  12. কৃষি
  13. খেলাধুলা
  14. চাকরী
  15. জাতীয়
আজকের সর্বশেষ সবখবর

১৪ বছর বয়সী স্কুল ছাত্রী ধর্ষন, সুষ্ঠ বিচারের দাবি এলাকাবাসির

পত্রিকা একাত্তর ডেক্স
আগস্ট ২৬, ২০২১ ৭:৩১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

ad

বাকেরগঞ্জ থনার নিয়ামতি ইউনিয়নের কাফিলা গ্রামে গত ৫ দিন পূর্বে ঘটে যাওয়া স্কুল ছাত্রী ধর্ষনের এখন পর্যন্ত কোনো সুরহা পায়নি তিষার পরিবার এবং এলাকাবাসী। সুষ্ঠ বিচারের আকাঙ্খা দেখিয়ে গন্যমান্য ব্যাক্তিরা গভীর ঘুমে নিমজ্জিত প্রায়।

গত ৫ দিন আগে ঘটে যাওয়া এ ঘটনার তেমন কোনো তদন্ত করেনি স্থানীয় প্রশাসনও। তিষার পরিবার থেকে জানা যায় মোঃ আরিফ (পিতা মোঃখালেক) দীর্ঘদিন তিষার পেছনে ঘোরাঘুরি করে। এক পর্যায়ে তিষা কাফিলা রামনগর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে যাওয়া আসার সময় প্রতিদিন তাকে চরমভাবে বিরক্ত করে আরিফ। পরক্ষনে এর কারন জানতে চাইলে আরিফের মুখ দিয়ে তিষার সাথে সম্পর্কের করার কথা বেড়িয়ে আসে। তিষা এ ব্যাপারে রাজি না হওয়ায় তাকে চরমভবে গালাগালি করে আরিফ। পরে তিষাকে ভিবিন্ন পায়তারার মাধ্যমে সম্পর্কে জড়িয়ে ফেলে। টানা তিন মাস সম্পর্কের পর আরিফ তিষাকে ধর্ষন করার কথা বললে তিষা রাজি না হয়ে, তাদের সম্পর্ক বিচ্ছেদ করে ফেলে।

পরবর্তী পর্যায়ে মোঃ হাসান (পিতা জলিল) এর সাথে আরিফ যোগ দিয়ে তিষাকে হাসানের দ্বারা আবারও হাত করে ফেলে। ঠিক তার কয়েকদিন পর হাসান তার মুখ দিয়ে তিষাকে ধর্ষন করার কথা বলে এবং তিষা তাতে রাজি না হলে আরিফ খুব রাগান্বিত হয়।ঐ রাতে তিষাকে বাসা দিয়ে নামতে বলে। রাতে তিষা বাসা দিয়ে না নামায় ফোন দিয়ে প্রচন্ড ভয় দেখায় আরিফ। আরিফ তার মুখ দিয়ে বলেছিলো তুই যদি না নামো তাইলে আমি এই গলায় রশি দিয়ে মরে গেলাম এবং তুই তোর মা, তোর পরিবারের সবার জেলের ভাত খাবি। তিষা এ কথা শুনে ঐ রাতেই বাইরে বেড়িয়ে পরে। ঠিক তখনিই মো আরিফ এবং মো হাসান তিষাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ শুরু করে। এমনঅবস্হায় তিষা কষ্ট সহ্য না করতে পেরে ছোটাছুটি শুরু করে। বাবা হারা মোয়েটির মুখ দিয়ে বেড়িয়ে আসছিলো বাবা…….বাবা শব্দের ধ্বনি। তখন তিষা বাসায় যাওয়ার কথা বললে তার ওড়না দিয়ে ফাস লাগিয়ে মেরে ফেলার হুমকি দেয় আরিফ। তখন নিরবে সব সহ্য করেছিলো তিষা।

কাজ শেস করে যাওয়ার সময় আরিফ, হাচান এলাকার কিছু লোকজনের সামনে পরে। পরে এ ঘটনা সম্পূর্ন জানাজানি হয়ে যায়। কিন্তু এ ঘটনার এখন পর্যন্ত কোনো আইনের সহায়তা নেওয়া হয়নি বলে জানিয়েছেন এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিরা। এমনকি এটাও জানা যায় তিষার পরিবার একটু গরিব বলে এ ব্যাপারটাকে খুব সহজভাবে নিতে চায় আরিফের বাবা মোঃ খালেক। তাই তিষার মা তিষাকে নিয়ে গ্রাম ছেড়ে চলে যায়।

এই আরিফের আরও একাধিক ধর্ষণের কথা শোনো গেছে স্হানীয় এলাকাবাসির মুখ থেকে। কিন্তু বিগত দিনগুলোতে এর কোনো সঠিক বিচার হয়নি বলে পূনরায় ১৪ বছর বয়সী তিষার জীবন নষ্ট হলো বলে মনে করছেন এলাকার জনগন।

ad