patrika71 Logo
ঢাকাবুধবার , ২৫ আগস্ট ২০২১
  1. অনুষ্ঠান
  2. অপরাধ
  3. অর্থনীতি
  4. আইন-আদালত
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আন্দোলন
  7. আবহাওয়া
  8. ইভেন্ট
  9. ইসলাম
  10. কবিতা
  11. করোনাভাইরাস
  12. কৃষি
  13. খেলাধুলা
  14. চাকরী
  15. জাতীয়
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সমাজ নির্মাণে মাদক মুক্ত তারুণ্য চাই

পত্রিকা একাত্তর ডেক্স
আগস্ট ২৫, ২০২১ ১১:১৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ad

তরুণরাই দেশ, জাতি ও সমাজের উজ্জ্বল নক্ষত্র, জাতির আগামী দিনের কর্ণধার। দেশকে আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে জাতির মূল চালিকাশক্তি হলো তরুণরাই। তরুণ প্রজন্মই আমাদের দেশ-জাতিকে ধীরে ধীরে উন্নতির দিকে টেনে নেয়ার বিরাট ভূমিকা রাখে এবং রেখে আসছে যুগে যুগে। তবে আমাদের দেশের তরুণ ও যুব সমাজের একাংশ নানাভাবে জড়িয়ে যাচ্ছে মরণ নেশা মাদকের সঙ্গে। এ নেশা এমনই এক নেশা ধীরে ধীরে বিবর্ণ করে দিচ্ছে আমাদের সবুজ তারুণ্যকে। নষ্ট করে দিচ্ছে দেশের ভবিষ্যত।

আমাদের দেশের রয়েছে পর্যাপ্ত তারুণ্যনির্ভর জনশক্তি। দেশের এ মূল্যবান সম্পদ মাদকের চোরাচালান ও অপব্যবহারের কবলে পড়ে যেমন ক্ষতিগ্রস্ত হয়, তেমনি দেশের অর্থনীতি বিপর্যস্ত হয়, উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হয়। নেশার ছোবলে পড়ে এ যুবসমাজ কর্মশক্তি, সেবার মনোভাব ও সৃজনশীলতা হারিয়ে দেশ ও জাতির অপূরণীয় ক্ষতি সাধন করছে। দেশীয় ও আন্তর্জাতিক গবেষণায় দেখা যায়, মাদক ব্যবহারকারীদের দুই-তৃতীয়াংশই বয়সে তরুণ বা টিনএইজ। পশ্চিমা দেশগুলোতে প্রতি পাঁচজনের মধ্যে একজন তরুণ মাদকাসক্ত। আমাদের দেশে জাতীয় পরিসংখ্যান না থাকলেও এটুকু বলা যায় এ হার কোনো অংশে কম নয়।

জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এ সময়টি বিভিন্ন কারণে ঘটনাবহুল, চ্যালেঞ্জিং ও সমস্যাসংকুল। শিক্ষা, চাকরি, ব্যক্তিগত সম্পর্ক, আত্মোন্নয়ন এবং আধুনিক নগর জীবনের চাহিদার সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে গিয়ে অনেকে এ বয়সে হতাশ, বিপথগামী এবং লক্ষ্যচ্যুত হয়ে পড়ে। অনেকে এ সময়ে আত্মপরিচয় সংকটে ভুগে থাকে। এতে তাদের ভেতর মানসিক চাপ বৃদ্ধি, উদ্বেগ, বিষণ্ণতা এবং আচরণগত সমস্যাসহ বিভিন্ন মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা বৃদ্ধি পায় যা মাদকাসক্তির ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। সামাজিক ভীতি ও লজ্জার কারণে বেশিরভাগে ক্ষেত্রে তারা বিষয়টি কারো সঙ্গে ভাগাভিগি করতে চায় না। ফলে তারা নিজেদের গুটিয়ে নেয় ও সমাজ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে।

তরুণ প্রজন্মই মাদক ও মাদকাসক্তি প্রতিরোধে অত্যন্ত কার্যকর ভূমিকা পালন করতে পারে বলে আমি মনে করি। তারাই পারবে দেশকে মাদকমুক্ত করতে। এজন্য তরুণ-তরুণীদের শুধু মাদকবিরোধী কার্র্যাবলীতে অংশ নিলেই চলবে না, বরং প্রতিটা দিন, প্রতিটা মুহূর্ত মাদকের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যেতে হবে।

মাদকাসক্ত অভ্যাস নির্মূলের জন্য যুব সমাজের একটি সিদ্ধান্ত যথেষ্ট। যুব সমাজের একটি দৃপ্ত শপথই পারে তাদের মাদকের অন্ধকার থেকে ফেরাতে। মাদকাসক্ত হয়ে পৃথিবীতে কেউ কিছুই করতে পারেনি নিজেকে ধ্বংস ছাড়া। তাই আসুন মাদক মুক্ত সমাজ গঠনে সামাজিক আন্দোলন শুরু করি। মাদকমুক্ত সমাজই হোক তারণ্যের অহঙ্কার।

জমিরউদ্দিন: কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি।

ad