patrika71 Logo
ঢাকাশুক্রবার , ২ জুলাই ২০২১
  1. অনুষ্ঠান
  2. অপরাধ
  3. অর্থনীতি
  4. আইন-আদালত
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আন্দোলন
  7. আবহাওয়া
  8. ইসলাম
  9. কবিতা
  10. করোনাভাইরাস
  11. কৃষি
  12. খেলাধুলা
  13. চাকরী
  14. জাতীয়
  15. টেকনোলজি
আজকের সর্বশেষ সবখবর

স্বপ্ন যেখানে আকাশ ছোয়া

পত্রিকা একাত্তর ডেক্স
জুলাই ২, ২০২১ ১০:২০ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

‘ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট তাহমিদ রুম্মান’ – বাঙালি জাতির এক শ্রেষ্ঠ সন্তান । ২০১৫ সালের ২৯ শে জুন রুটিন ফ্লাইটে তার F-7MB যুদ্ধবিমান নিয়ে বঙ্গোপসাগরে বিধ্বস্ত হয়ে শাহাদাৎ বরণ করেন।

আজ তার ৬ষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী। এই দিন জাতি হারিয়েছে তার এক শ্রেষ্ঠ সন্তানকে।

চট্টগ্রামের জহুরুল হক ঘাঁটি থেকে সকালে নিয়মিত ফ্লাইটে তার যুদ্ধবিমনটি নিয়ে আকাশে ওড়েন পাইলট তাহমিদ রুম্মান। বেলা ১১টা ১৪ মিনিটে নিয়ন্ত্রণ কক্ষের সঙ্গে এর সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এরপর আনুমানিক সাড়ে ১১টার দিকে এটি সাগরে বিধ্বস্ত হয়। বিমান বিধ্বস্ত হওয়ার পর থেকে নৌবাহিনী, বিমানবাহিনী ও কোস্টগার্ড সাগরে তল্লাশি অভিযান শুরু করে। কিন্তু সাগর প্রতিকূল থাকায় ব্যাপক তল্লাশীর পরও সাগর থেকে ভাঙা দুটি ডানা উদ্ধার করা ছাড়া আর কিছুর সন্ধান মেলেনি।

♦”ফ্লাইটে আছি, আমি একা যাচ্ছি “

প্রতিবার উড্ডয়নের আগে এবং বিমান থেকে নেমে ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট রুম্মান তাহমিদ মোবাইল ফোনে কথা বলেন মা-বাবার সঙ্গে। গতকাল সোমবারও উড্ডয়নের আগে তিনি প্রথমে ফোন দিয়ে মায়ের সঙ্গে কথা বলেন। পরে বাবাকে ফোন দেন। তবে বাবা ঘুমে থাকায় কথা হয় ছোট বোনের সঙ্গে। ছোট বোনকে বলেন, ‘ফ্লাইট আছে, আমি একা যাচ্ছি।’ (প্রথম আলো)

চার ভাই বোনের মধ্যে তিনিই ছিলেন পরিবারের বড় সন্তান।
কুমিল্লা ইস্পাহানি পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে ২০০৬ সালে এসএসসি এবং নটরডেম কলেজ থেকে ২০০৮ সালে এইচএসসি পাস করে বিমানবাহিনীতে যোগ দেন তাহমিদ। পরিবারের বড় সন্তান হিসেবে সব সময় সংসারের সব কাজে দায়িত্ব পালন করেছেন।

♦ আজও তার মৃত দেহ উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। বিমান টি সাগরে বিধ্বস্ত হওয়ার পর অনেক চেষ্টা করা হলেও তার মৃতদেহ উদ্ধার করা সম্ভব হয় নি।যদিও বিমানের কিছু ধংসাবেশ উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছিলো।

বিমানটি বিধ্বস্ত হওয়ার আগে তিনি সর্বাত্নক চেষ্টা করেছেন যাতে বিমান টি নিয়ে মাটিতে ল্যান্ড করতে পারেন। একবার চেষ্টাও করেছিলেন কিন্তু সফল হন নি।পরবর্তী তে চেষ্টা করতে চেয়েছিলেন কিন্তু সে সুযোগ আর পান নি।

‘ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট তাহমিদ রুম্মান’ একজন বিমান বাহিনীর পাইলট ই ছিলেন না তিনি দেশের ও সম্পদ ছিলেন। আল্লাহ তাকে জান্নাত নসীব করুন….আমিন।

ইফতেখার নাঈম তানভীর : মহেশখালী