patrika71
ঢাকাসোমবার - ৯ জানুয়ারি ২০২৩
  1. অনুষ্ঠান
  2. অনুসন্ধানী
  3. অর্থনীতি
  4. আইন-আদালত
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আবহাওয়া
  7. ইসলাম
  8. কবিতা
  9. কৃষি
  10. ক্যাম্পাস
  11. খেলাধুলা
  12. জবস
  13. জাতীয়
  14. ট্যুরিজম
  15. প্রজন্ম
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কালীগঞ্জে প্রায় ৩ কোটি টাকা রাস্তা সংস্কারের ১ মাসেই ভেঙে গেছে

স্টাফ রিপোর্টার
জানুয়ারি ৯, ২০২৩ ৯:৪৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার প্রায় তিন কোটি টাকা ব্যয়ে রাস্তা নির্মাণের এক মাসের মধ্যে ফাটল এবং কার্পেটিং উঠে গিয়ে হুমকির মুখে পড়েছে নির্মাণাধীন রাস্তা । রাস্তাটি পুণরায় সংস্কারের কাজ করেন মেসার্স আমজাদ ট্রেডার্স এর নামে কাপাসিয়া উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এমএ ওহাব খান খোকা ।

কালীগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী সূত্রে জানা যায়, গ্রামীণ সড়ক মেরামত ও সংরক্ষণ এলজিআরডি প্রকল্পের আওতায় দোলান বাজার থেকে নোয়াপাড়া পর্যন্ত প্রায় ৪.৫০ কিলোমিটার রাস্তার বাজেট ব্যয় ধরা হয়েছে ২ কোটি ৯৯ লক্ষ ৪৫ হাজার টাকা । অথচ রাস্তাটি নির্মাণের এক মাসের মধ্যে বিভিন্ন স্থান ফাটল, কার্পেটিং উঠে গিয়ে এজিং ভেঙে বিলে চলে গেছে । জনসাধারণের দাবি নিম্ন মানের ইট, খোয়া, পাথর, বালু দেওয়ার কারণে বিভিন্ন স্থানে রাস্তা উঁচু নিচু হয়ে দেবে গেছে । যার ফলশ্রুতিতে এক মাসের মধ্যেই রাস্তাটির বেহাল দশা ।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, দোলান বাজারের কয়েক শত গজ দূরে রাস্তার এজিং ভেঙে বিলে চলে গেছে । রাস্তাটি মাঝখানে ফেঁটে গেছে, কার্পেটিং উঠে গিয়েছে বেশ কয়েক জায়গায় । দোলান বাজারের সামনে রাস্তায় ফাটল এবং কয়েক গজ সামনে রাস্তা ভেঙে বিলে চলছে গিয়েছে ।

স্থানীয় লোকজন বলেন, প্রতিদিন আমরা এ রাস্তা দিয়ে নিয়মিত যাতায়াত করি । আমাদের উৎপাদিত মৌসুমী ফসল ও মালামাল গাড়িতে বহন করে বিভিন্ন বাজারে নিয়ে যাই । এ রাস্তার কাজ যে নিন্মমানের সামগ্রী দিয়ে করা হয়েছে কত দিন টিকে তা এখন ভাবার বিষয় । রাস্তা নির্মাণের একমাসেই রাস্তার এই অবস্থা ।

তাছাড়া আসে পাশের কর্মজীবী মানুষের কর্মস্থল প্রাণ (আরএফএল), জনতা জুট মিল,এমিগু বাংলাদেশ লিমিটেডের মত বড় বড় কম্পানিতে শ্রমিক সহ কম্পানির কাঁচামাল যাওয়ার এক মাত্র রাস্তা এটা । রাস্তাটি দিয়ে প্রতি দিন হাজার হাজার শ্রমিক যাতায়াত করে । তাই আমরা চাই রাস্তাটি যেন পুনরায় সংস্কার করা হয় ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক ব্যবসায়ী বলেন, রাস্তা নির্মাণের কয়েকদিন পর বিভিন্ন স্থান গর্ত হয়ে দেবে গেছে।অনেক স্থান উঁচু নিচু হয়ে গেছে। তার অভিযোগ রাস্তায় কাজ করার সময় কন্টাকটার নতুন ইট, বালু দেননি। রাস্তার পুরাতন ইট তুলে তার ওপরে পিচ ঢেলে রোলার টেনেছেন। যার ফলে রাস্তা নির্মাণ হতে না হতেই পিচ ফেঁটে গিয়ে উঠে যাচ্ছে । এ যেন সরকারি টাকাগুলো জেনেশুনে পুরাটায় জলে ঢেলে দেওয়া হয়েছে।

অনেক স্থানের আগের এজিং উঠিয়ে রাস্তা ছোট করে পূণরায় এজিং বসানো হয়েছে। বিভিন্ন স্থানে এজিং থেকে ফাঁকা রেখে পিচ ঢালায় দেয়া হয়েছে । যে কোন সময় সম্পূর্ণ রাস্তার ক্ষতি হতে পারে । আগের রাস্তায় দুইটা মাল গাড়ি অনায়াশে ক্রোসিং করতে পারতো, রাস্তা ছোট করাতে তা এখন কষ্টকর ।

রাস্তাটির ঠিকাদার মেসার্স আমজাদ ট্রেডার্স এর মালিক মোঃ ফারুক হোসেন বলেন, আসলে রাস্তাটি আমার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের নামে কাজটি করেছেন কাপাসিয়া উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এমএ ওহাব খান খোকা ।

এ বিষয়ে দুর্গাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ওহাব খান খোকা বলেন, আমরা গুণাগতমান রক্ষা করে রাস্তাটির কাজ করেছি । যদি কোন রাস্তা এক বছরের মধ্যে কোথাও ভেঙ্গে যায় অথবা কার্পেটিং উঠে যায় সে রাস্তা গুলো আমরা পুনরায় রিপেয়ারিং করে দেই । যেহেতু রাস্তাটিতে সমস্যা হয়েছে রাস্তাটি অবশ্যই রিপেয়ারিং করে দেওয়া হবে ।

কালীগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী কর্মকর্তা মোঃ বেলাল হোসেন বলেন, রাস্তার এই বিষয়টি যখন আমাদের নজরে আসে আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি । রাস্তাটির ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানকে চিঠির মাধ্যমে বিষয়টি জানিয়ে দেওয়া হয়েছে । ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান এবং যারা রাস্তাটি সংস্কার করেছে তারা নিজ অর্থায়নে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে রাস্তাটি পুনরায় সংস্কার করবেন।

পত্রিকা একাত্তর/ মারুফ হাসান