patrika71
ঢাকাশনিবার - ৩১ ডিসেম্বর ২০২২
  1. অনুষ্ঠান
  2. অনুসন্ধানী
  3. অর্থনীতি
  4. আইন-আদালত
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আবহাওয়া
  7. ইসলাম
  8. কবিতা
  9. কৃষি
  10. ক্যাম্পাস
  11. খেলাধুলা
  12. জবস
  13. জাতীয়
  14. ট্যুরিজম
  15. প্রজন্ম
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আদিতমারী সীমান্তে গরু পাচারকারীদের হাতে গ্রাম্য পুলিশ আহত

জেলা প্রতিনিধি, লালমনিরহাট
ডিসেম্বর ৩১, ২০২২ ৭:০৮ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

লালমনিরহাটে আদিতমারী উপজেলার সীমান্তে ভারতীয় গরু পাচার ও মাদকদ্রব্য পাচার করতে জমে উঠেছে এই সীমান্ত।

এই সকল গরু এবং মাদক পাচার কারীদের সাথে যোগ দিয়েছে স্থানীয় বড় মাপের ভদ্র ব্যবসায়ীগণ।

এতে করে বেড়ে গেছে বিভিন্ন অপকর্ম আর এই অবৈধ অপকর্মে সার্বিক সহযোগিতা করছে আদিতমারী থানা পুলিশের একটি অংশ।

এই সকল অপকর্মের মোটা অংকের অর্থ উত্তোলন করার জন্য নিয়োগ দিয়েছে সীমান্তে ভেলাবাড়ী ইউনিয়নের গ্রাম পুলিশ বাদশা মিয়া কে। তথ্য অনুসন্ধানে জানা গেছে ভেলাবাড়ী ইউনিয়নের চৌকিদার বাদশা মিয়া গরু প্রতি ৫ শত টাকা এবং মাদক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে মাসিক ভিত্তিতে মোটা অংকের অর্থ উত্তোলন করছে।

এই সকল অর্থ উত্তোলন করতে সার্বিক সহযোগিতা করছে আদিতমারী থানা পুলিশের একটি টিম।

এই উপজেলার মধ্যে সরকার দলীয় নেতা কর্মীদের দুই গ্রুপের বিভাক্ত থাকায় অনেকটাই অভিভাবক বিহীন উপজেলা হিসেবে মনে করছে সচেতন মহল। পূর্বে গ্রামগঞ্জে যে ভাবে গ্রাম্য সালিশ ও বিচার করা হতো বর্তমানে সেটি থানায় করা হচ্ছে।

বর্তমান প্রেক্ষাপট অনুযায়ী সচেতন মহল নিজেদের গা বাঁচিয়ে চলাচল করছে কেউ সত্য কথা এবং প্রতিবাদ করে ঝামেলা পড়ুক কেউ চায় না।

আর সংবাদ কর্মী সত্যি লেখে সম্পর্ক নষ্ট হোক এটাও চায় না, তাদের কোন রকম দিন গেলেই হলো। সেই জন্য কেউ অবৈধ অপকর্মে প্রতিবাদ করতে চায় না।

আদিতমারী উপজেলার সীমান্তে ভেলাবাড়ী ইউনিয়নের বাদশা চৌকিদার এর বিরুদ্ধে উল্লেখযোগ্য অভিযোগ তদন্ত করা হলে প্রামান মিলবে। বাদশা চৌকিদারে নামে একাধিক সংবাদ ইতি পূর্বে প্রকাশ করা হলে ও প্রশাসনিক ভাবে কোন আইনগত ব্যবস্থা অথবা তদন্ত করা হয়নি।

এই চকিদারে মাধ্যমে আদিতমারী থানা পুলিশ অবৈধ গরু পাচারে টাকা নিচ্ছে পিচ প্রতি ৫ শত টাকা করে ।

গরু ও মাদক ব্যবসায়ীগণ বিভিন্ন ঝামেলা এড়াতে গরু প্রতি ৫ শত টাকা করে দিচ্ছে, আর মাদক ব্যবসায়ীগণ মাসিক ভিত্তিতে মোটা অংকের টাকা দিচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জানায় থানা পুলিশের টাকা চৌকিদারে মাধ্যমে না দিলে বাদশা চৌকিদার থানা পুলিশ নিয়ে সীমান্তে গরু ও মাদক ব্যাবসায়ীদের বাড়ীতে অভিযান পরিচালনা করে মোটা অংকের অর্থ আদায় করে। তাই সীমান্তবর্তী গরু ব্যবসায়ীগণ ও মাদক ব্যবসায়ীগণ মামলা ও ঝামেলা এড়াতে ভয়ে টাকা দিয়ে থাকেন। কয়েক দিন আগে আদিতমারী সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে ২ গরু ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে নিহত হওয়ার ১-২ দিন আগে একাধিক সংবাদ প্রকাশ করা হলেও কর্তৃপক্ষ কোন ব্যবস্থা নেয়নি।

এই সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে প্রত্যেক বছরের ৪/৫ জন মৃত্যু বরণ করেন।এই জেলায় শীতের মৌসুমে ঘন কুয়াশায় থাকায় কাঁটা তারে বেড়া উপর দিয়ে চড়কি বসিয়ে গরু ও মাদক পাচার করে আসছে। গরু ব্যবসায়ীগণ অধিক লাভের আশায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সীমান্তে গরু ও মাদক পাচারে পেশা হিসেবে বেঁচে নিয়েছে।

এদিকে গরু পাচারকারীদের অর্থ লেনদেন এক চৌকিদারে মাধ্যমে হলে অন্যান্য চৌকিদারগণ ক্ষিপ্ত হয়ে থাকেন, তারা টাকা ভাগ না পাওয়া উক্ত ইউনিয়নে চৌকিদার ক্ষিতিশ চন্দ্র ভারতীয় গরু আটক করতে গেলে গরু ব্যবসায়ীগণ বলে বাদশা চৌকিদার কে টাকা দেওয়া হয়‌।

গরু পাচার কারী ব্যবসায়ীগণ বাদশা চৌকিদার সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করে বিষয়টি জানালে তাদের কে নির্দেশ দেয় চৌকিদার ক্ষিতিশ কে মারপিট করে তাড়িয়ে দিতে। বাদশা চৌকিদারে নির্দেশে ক্ষিতীশ চন্দ্র চৌকিদার কে মারপিট করে গুরুতর আহত করেন গরু পাচারকারী ব্যবসায়ীগণ।

তার আত্মচিৎকারের এলাকা লোকজন এগিয়ে এসে উদ্ধার করে আদিতমারী হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য প্রেরণ করেন।

বর্তমানে ক্ষিতিশ চন্দ্র চৌকিদার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

বিষয়টি উদ্ধতম কর্তৃপক্ষ গোপনে তদন্ত করলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে এলাকাবাসীর জোর দাবি জানিয়েছেন।

পত্রিকা একাত্তর/ গোলাপ মিয়া