প্রচ্ছদসারাদেশকেন ভাঙ্গা হচ্ছে না আ'লীগ নেতার অবৈধ...

কেন ভাঙ্গা হচ্ছে না আ’লীগ নেতার অবৈধ ইটভাটা?

দেশের সব অবৈধ ইটভাটা ও ইটভাটায় জ্বালানি হিসেবে কাঠ ব্যবহারের কার্যক্রম সাত দিনের মধ্যে বন্ধের পদক্ষেপ নিতে নির্দেশ দিয়েছ হাইকোর্ট। এ বিষয়ে,গত ১৩ নভেম্বর জেলা প্রশাসকে নির্দেশনা দিতে মন্ত্রিপরিষদ সচিব ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব এবং পরিবেশ সচিবকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

১৩ নভেম্বর জনস্বার্থে দায়ের করা এক রিট আবেদনের শুনানি শেষে বিচারপতি মো. আশফাকুল ইসলাম ও বিচারপতি মো. সোহরাওয়ার্দীর সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলসহ এ আদেশ দেন।

এদিকে এ আদেশের পর থেকে সারাদেশের ন্যায় ঢাকার ধামরাইয়ে শুরু হয় অবৈধ ইট ভাটা অপশারনের কাজ।ইত্যি মধ্যে ধামরাইয়ের সুয়াপুর ইউনিয়নের সুয়াপুর গ্রামে অবস্থিত মাদার্স ব্রিকস সহ বেশ কয়েকটি ইট ভাটা ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয় সংশ্লিষ্ট প্রশাসন। এ সময় কয়েকটি ইটভাটাকে জরিমানাও করা হয়। কিন্তু মাদার্স ব্রিকস এর পাশেই থাকা আশুলিয়া থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি ফারুক হাসান তুহিনের মালিকানাধীন কাগজপত্রহীন অবৈধ এস.আর.এম ব্রিকস রয়েছে অক্ষত অবস্থায়। তাই স্থানীয়দের প্রশ্ন কেন ভাঙ্গা হচ্ছে না আ’লীগ নেতার অবৈধ ইটভাটা?

অন্যদিকে রুলে অবৈধ ইট প্রস্তুত ও ইটভাটা স্থাপন ভাটার ইট তৈরিতে কাঠের ব্যবহার বন্ধে বিবাদীদের নিস্ক্রিয়তা কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ।

Evend Shop

আগামী ৪ সপ্তাহের মধ্যে এ রুলের জবাব চেয়েছে হাইকোর্ট। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল কাজী মাঈনুল হাসান।

এ ব্যাপারে ধামরাই উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফারজানা আক্তার জানান, সকল অবৈধ ইটভাটার লিস্ট করা আছে, পর্যায়ক্রমে সব ভাঙ্গা হবে।

এ বিষয়ে ধামরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হোসাইন মোহাম্মদ হাই জকী বলেন, আমাদের এইখানে অবৈধ বলতে মেয়াদ পার হয়ে গেছে এইরকম অবৈধ ইটভাটা ৬০-৭০ টা আছে। আমরা কাজ করছি। সব গুলো তো আর একদিনে হয় না। প্রতি সপ্তাহে আমরা অভিযানে যাই। প্রতিটা কাজ সময় সাপেক্ষের ব্যাপার, তাই একটু সময় লাগবে। একটা কাজ করতে যদি সন্ধ্যা হয়ে যায় পরের টা তো আর করা যায় না, এক একটা সময় আমরা এক একটা ইউনিয়ন নিয়ে করছি, যতক্ষন সময় থাকে আমরা ততক্ষন করছি।

পরিবেশ অধিদপ্তরের ঢাকা জেলা কার্যালায়ের উপ-পরিচালক মোঃ জহিরুল ইসলাম তালুকদার বলেন, আমি সাভারে একটা অভিযান পরিচালনা করতেছি, আবার এই মোবাইল কোর্ট ধামরাই এর দিকে যাবে, আমি আপনাকে বলে রাখছি একটা অবৈধ ব্রিক ফিল্ডও রাখবো না, সবগুলো ভেঙ্গে ফেলার জন্য আমি সর্বোচ্চ চেস্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

সম্পর্কিত নিউজ

সর্বশেষ নিউজ